আপডেট

x

হত্যার রহস্য উন্মোচন হলো ট্রেনের টিকিটে

সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১১:০৬ অপরাহ্ণ | 2242 বার

হত্যার রহস্য উন্মোচন হলো ট্রেনের টিকিটে

লাশের পকেটে থাকা দুইটি ট্রেনের টিকিটের সূত্রধরে  গত ২৩ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বেতবাড়িয়ায় ডুবা থেকে উদ্ধার হওয়া গলাকাটা লাশের হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে সদর থানা পুলিশ। আটক করা হয়েছে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত আসামীদের।

সোমবার বেলা ৩টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আলমগীর হোসাইন।
তিনি জানান, হত্যাকান্ডের পর উদ্ধার হওয়া মরদেহটির কোন পরিচয় পাওয়া যাচ্ছিল না। লাশের পাঞ্জাবির পকেটে দুইটি লোকাল ট্রেনের টিকেট ছিল। ওই টিকেটে চট্রগ্রামের হাটহাজারীর কথা উল্লেখ্য করা ছিল। জেলা পুলিশ থেকে হাটহাজারী থানায় উদ্ধারকৃত লাশের বিবরণ দিয়ে বার্তা পাঠানো হয়। লাশ উদ্ধারের ৪ দিন পর ২৭ নভেম্বর আব্দুল মালেক নামের এক ব্যক্তি তার ছেলেকে পাওয়া যাচ্ছে না বলে হাটহাজারী থানায় সাধারণ ডায়েরি করে। প্রাপ্ত তথ্যের সাথে কিছুটা মিল থাকায় আব্দুল মালেককে হাটহাজারী পুলিশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় পাঠিয়ে দেয়। সদর থানায় এসে আব্দুল মালেক পুলিশের কাছে থাকা আলমত ও ছবি দেখে সনাক্ত করে লাশটি তার ছেলে আকবর হোসেনের(২৩)। তার বাড়ি ভোলা জেলার দৌলতখানের সৈয়দপুরে।
আলমগীর হোসেন আরো জানান, আকবরের মোবাইল নম্বরের কল লিস্টের সূত্রধরে প্রযুক্তির সহায়তায় মাহমুদুল হাসান (২৫) নামের একজন আসামীকে সনাক্ত করে। সরাইলে কালিকচ্ছ আসলে প্রযুক্তির সহযোগিতায় রোববার তাকে আটক করা হয়। সে সিরাজগঞ্জ জেলার চৌহলীর খাশ কাউনিয়ার মোঃ সোলাইমানের ছেলে। আটক মাহমুদুলের তথ্য অনুযায়ী সদর উপজেলার বুধল ইউনিয়নের ছাতিয়ান থেকে ইকবাল হোসেন(২৫) নামের অপর আরেকজন কে আটক করা হয়। সে ওই এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে।

তারা দুইজনই পুলিশের কাছে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে।
সংবাদ সম্মেলন উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেজাউল কবির, পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল হক সহ বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com