স্কুলের নলকূপ খনন করতেই বের হচ্ছে গ্যাস

বুধবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১১:২৮ অপরাহ্ণ | 181 বার

স্কুলের নলকূপ খনন করতেই বের হচ্ছে গ্যাস

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার একটি বিদ্যালয়ে নলকূপ খননকালে অবিরাম গ্যাস বের হচ্ছে। বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের অষ্টজংগল সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের হঠাৎ করে বিকট শব্দে নলকূপ থেকে গ্যাস নির্গত হতে শুরু করে। এতে করে হুমকির মুখে পড়েছে বিদ্যালয়ের দুটি ভবন। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে অনির্দিষ্ঠ কালের জন্য বিদ্যালয়টি বন্ধ ঘোষনা করেছে কর্তৃপক্ষ।


এনিয়ে বিপদের আশংকায় আতংক বিরাজ করছে মানুষের মাঝে। নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালন করছে কসবা থানা পুলিশ ও স্থানীয় বিজিবি ক্যাম্পের জোয়ানরা। গ্যাস নির্গমনের পাশে লাল পতাকা টানিয়ে দেয়া হয়েছে। গ্যাস নির্গমনের দৃশ্য দেখতে বিদ্যালয়ের আশে পাশে ভীড় জমিয়েছে উৎসুক নারী-পুরুষ।

বায়েক ইউপি চেয়ারম্যান ও সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আল মামুন ভূইয়া জানান, বিদ্যালয়ের পুরাতন টিউবওয়েলটি কাজ না করায় সরকারী ভাবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের তত্ববধানে একটি টিউবওয়েল বসানোর কাজ শ্রমিকরা করছিলো গত তিনদিন যাবত। প্রায় সাড়ে নয়শত ফিট বোরিং করার পর বালি এবং পানির লেয়ার পাওয়ায় ফিল্টার পাইপ লাগানোর জন্য পাইপ উপরের দিকে তুলছিলো। আনুমানিক দেড়শত ফিট উপরে তুলার পর হঠাৎ করে বিকট শব্দে গ্যাস উঠতে থাকে। প্রথমদিকে প্রায় ৬০/৭০ উপরে উঠতে থাকে গ্যাস এবং বালু ও পানি। এই অবস্থায় টিউবওয়েল মিস্ত্রিরা ভয়ে দুরে সরে যায়। গ্যাসের সাথে নিচের বালু উঠে আসার কারনে দুটি ভবন এখন হুমকির মুখে। প্রচন্ড বেগে নিচ থেকে গ্যাস,বালু এবং পানি উঠার কারনে একটি ভবন অর্ধেক বালির নিচে চলে গেছে অপর ভবনটির মধ্যে হালকা কাপুনি অনুভ’ত হয়। বালি এবং পানিতে বিদ্যালয়ের মাঠ একাকার হয়ে গেছে। এমতাবস্তায় শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা ভেবে বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দায়িত্বে থাকা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন সাংবাদিকদের বলেন,  শেরে বাংলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে একটি নতুন গভীর নলকূপ বসানো হয়েছিল। ওই নলকূপের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। কিন্তু  বুধবার সকাল থেকে নলক‚পের গর্ত থেকে দ্রুত গতিতে গ্যাস বের হচ্ছে। কোন ভাবেই তা বন্ধ করা যাচ্ছে না। বিষয়টি পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান, জালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এমপি এবং জেলা প্রশাসক মহোদয়কে অবহিত করা হয়েছে।

তিনি জানান, বিদ্যালয়ের একটি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। ওই ভবনের আসবাবপত্র অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। স্কুলের কার্যাক্রম অস্থায়ীভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। বিদ্যালয়ের চারপাশে পুলিশ ও গ্রাম পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com