আপডেট

x

সাংবাদিক শাহাদাতের উপর হামলাকারী কারাগারে, ৫দিনের রিমান্ড আবেদন

বৃহস্পতিবার, ০৩ জুন ২০২১ | ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ | 347 বার

সাংবাদিক শাহাদাতের উপর হামলাকারী কারাগারে, ৫দিনের রিমান্ড আবেদন
হামলাকারী মো. রোমান মিয়া।-ফাইল ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক শাহাদৎ হোসেনের উপর হামলার ঘটনায় প্রধান আসামী মো. রোমান (২৮)কে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। এর আগে সদর মডেল থানায় এই ঘটনায় আহত সাংবাদিক শাহাদাৎ হোসেন বাদি হয়ে মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মামলা দায়ের করেন।


মামলায় আসামী করা হয়েছে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়দানকারী রোমান মিয়া (২৮) ও তার ভাই জেলা সৈনিক লীগ নেতা মো. জুম্মান (৩৬) সহ আরও অজ্ঞাত ৫/৬জনকে। রোমান ও জুম্মান জেলা শহরের কাজীপাড়ার রউফ মিয়ার ছেলে। এরমধ্যে রোমানকে মঙ্গলবার সন্ধ্যা পুলিশ গ্রেফতার করে।

webnewsdesign.com

বুধবার দুপুরে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরানুল ইসলাম জানান, ইতিমধ্যে সাংবাদিকের উপর হামলাকারী রোমানকে গ্রেফতারের পর আজ দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিজ্ঞ আদালতে ৫দিনের রিমান্ড আবেদন করা হবে। অন্য আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত আছে।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনের প্লাটফর্মে একটি মানববন্ধনের কর্মসূচি চলাকালে সাংবাদিক শাহাদাৎ হোসেনের উপর হামলার ঘটনা ঘটে। পরে ঘটনাস্থলে উপস্থিত অন্যান্য সংবাদ কর্মীরা তাকে উদ্ধার করে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন।

হামলার শিকার সাংবাদিক শাহাদৎ হোসেন বলেন, মানববন্ধন চলাকালে স্টেশনের গেইট কিপার মুরাদুল ইসলামকে রোমান নামের এক যুবক মারধর করে। মুরাদুল বিষয়টি আমাকে জানালে আমি যুবলীগ নেতা সাবেক ভিপি হাসান সারোয়ার ভাইকে জানাই। আমি কেন হাসান ভাইকে জানালাম এই কারণে রোমান অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগ নেতা পরিচয়দানকারী রোমান ও তার ভাই সৈনিক লীগের নেতা জুম্মান কিছু বুঝে উঠার আগেই আমাকে মারধর শুরু করে। তারা একের পর এক এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি মারতে থাকে। পরে সহকর্মীরা এসে আমাকে উদ্ধার করে।
খবর পেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকতারা হাসপাতালে আহত সাংবাদিক শাহাদাৎ হোসেনকে দেখতে আসেন। এসময় তারা হামলার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দেন।


মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com