সরাইলে কলেজছাত্রীকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

শুক্রবার, ০১ নভেম্বর ২০১৯ | ১০:৩৬ অপরাহ্ণ | 53 বার

সরাইলে কলেজছাত্রীকে লাঞ্ছিতের অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে ৮ যুবকের বিরুদ্ধে এক কলেজ ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করার অভিযােগ করেছে ছাত্রীর পিতা। ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর গত ৩১ অক্টােবর এ অভিযােগ দায়ের করেছেন। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সুপারিশ সম্বলিত এ অভিযােগের প্রয়ােজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এর কাছে প্রেরণ করেছেন ইউএনও।

অভিযােগপত্র ও ছাত্রীর পারিবারিক সূত্র জানায়, ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ সরাইল সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেছে ওই ছাত্রী। অনার্স শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার জন্য গত বৃহস্পতিবার কলেজের উদ্যেশ্যে রওনা দেয়। সকাল ১০টার দিকে কালিকচ্ছ দক্ষিণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনপ মাে. ইব্রাহিমের নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন যুবক ওই ছাত্রীকে উত্যক্ত করে। সেই সাথে ছাত্রীর উদ্যেশ্যে কুবাক্য ব্যবহার করে। এক পর্যায়ে তারা ছাত্রীকে শারীরিক ভাবে নাজেহাল ও লাঞ্ছিত করে। বখাটেরা ওই ছাত্রীর মাথায় আঘাত করে। চােখে যন্ত্রণাদায়ক আঘাত করে ধাক্কা মেরে মাটিতে ফেলে দেয়। সড়ক যাওয়ার পথে ছাত্রীর এক মামা ঘটনা দেখে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসলে বখাটেরা তার উপরও আক্রমন করে মারধোর করে। আশপাশের লােকজন এসে তাদের উদ্ধার করে। পরবর্তীতে ছাত্রীর বাবা ছাত্রীকে উদ্ধার করে বাড়ি ফেরার পথে বখাটেরা তাকেও ধাওয়া করে সকাল বাজার এলাকা পর্যন্ত আসে। তারা দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত হয়ে ছাত্রীর বাবাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয় ও লাঞ্ছিত করে। বাজারের লােকজনের সহায়তায় ছাত্রীর বাবা রক্ষা পায়।
অন্য অভিযুক্তরা হলাে- ওমর, আবু বক্কর, আবু সুফিয়ান ও অজ্ঞাতনামা আরাে ৪ জন।

ছাত্রীর বাবা বলেন, আমার মেয়ে পড়তে চায়। কিন্তু ওই বখাটেদের উত্যক্তর ভয়ে প্রায়ই কলেজে যেতে চাই না। সবসময় আতঙ্কে থাকে। আমি এর একটা দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাে. শাহাদাৎ হােসন টিটাে বলেন, একাধিকবার অভিযান করেছি। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা বলেন, এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা কােন ভাবেই মেনে নেয়া যায় না। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছি। আমরাও চেষ্টা করছি।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com