মালয়েশিয়ায় কলিং ভিসায় কেমন আছেন প্রবাসী বাংলাদেশীরা!

রবিবার, ৩০ জুলাই ২০২৩ | ৯:৪৮ অপরাহ্ণ |

মালয়েশিয়ায় কলিং ভিসায় কেমন আছেন প্রবাসী বাংলাদেশীরা!
Spread the love

মালয়েশিয়া এখন বাংলাদেশীদের জন্যে অন্যতম শ্রমবাজার হিসেবে লাখ লাখ কর্মীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। একদিকে যেমন ক্রমবর্ধমান দেশে উদীয়মান বেকার জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান নিশ্চিত হচ্ছে তেমনি নিয়মিত রেমিট্যান্স পাঠিয়ে অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে প্রবাসীরা।

২০২২ সালে কলিং খোলার পর ধাপে ধাপে শুধু মাত্র বাংলাদেশের জন্য ৪ লাখ ৭০ হাজার কৌঠা অনুমোদন দেয় দেশটির সরকার। মালয়েশিয়ার সোর্স কান্ট্রিগুলো থেকে যত জনশক্তি আমদানি করে এই তালিকায় এখন বাংলাদেশ শীর্ষে অবস্থান করছে। ইতিমধ্যে প্রায় ২ লক্ষ ৩২ হাজার বাংলাদেশি কর্মী কলিং ভিসায় মালয়েশিয়া পৌঁছেছেন।

webnewsdesign.com

এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মালয়েশিয়াস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস নিযুক্ত (লেবার উইং) মিনিস্টার মো. নাজমুস সাদাত সেলিম।

দেশটিতে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক জনশক্তি প্রবেশ করেছেন কনস্ট্রাকশন সেক্টর। পাশাপাশি রয়েছে ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টর, সার্ভিস সেক্টর, ক্লিনার সেক্টর। সরকারি ভাবে কম খরচের কথা বলা হলেও সিন্ডিকেট এর কারণে মালয়েশিয়ায় যেতে প্রতিজনকে গুনতে হয়েছে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা। তবে প্রবাসীরা জানিয়েছেন, যাওয়ার এই খরচের টাকা তুলতে তাদের কয়েক বছর লেগে যাবে। তাছাড়াও মালয়েশিয়ায় যারা পুরাতন কর্মী রয়েছেন সিক্সপি ভিসা রিনিউ করতে পারেননি তারা সহ বিভিন্ন দেশের প্রায় ৭ লাখ ২০ হাজার কর্মী বৈধ হওয়ার জন্য আরটিকে-২.০তে আবেদন করেছেন।

রাজধানী কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যাচ্ছে, প্রতিদিন হাজার হাজার কলিং ভিসায় মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করছেন। এই প্রতিবেদকের সাথে বিমানবন্দরে কথা হয় বেশ কয়েকজনের সাথে। তারা মালয়েশিয়ার অন্যতম কনস্ট্রাকশন কোম্পানি মিজান গ্রান্ড ইন্টার ট্রেডার্স এর মাধ্যমে এসেছেন বলে জানান।

এসময় তারা বললেন, আমরা কোনরকম ইমিগ্রেশন ঝামেলা ছাড়াই মালয়েশিয়ায় প্রবেশ করেছি। দাতুক মিজান বস আমাদের বিমানবন্দর থেকে সরাসরি রিসিভ করেছেন।

তবে সংশ্লিষ্টরা আশঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছেন,প্রবাসী সব কর্মী মালয়েশিয়ায় প্রবেশের পর সাময়িক ভাবে কাজের সংকট তৈরী হতে পারে। বিশেষ করে যে সমস্ত নিয়োগকর্তাদের নিজের কোন কোম্পানি নেই বা আর্থিকভাবে লাভবান হতে কলিং ভিসায় কর্মী এনে অন্যান্য কোম্পানিতে সাপ্লাই দিচ্ছেন, তাদের কর্মীরাই জটিলতায় পড়তে পারেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকের চাহিদা সব সময়ই রয়েছে। কারণ বাংলাদেশি কর্মীরা যে পরিশ্রম করতে পারেন, তা মালয়েশিয়ানরা সেভাবে পরিশ্রম করতে পারে না। মালয়েশিয়ান সরকার তাদের নিজ দেশের কর্মীদের সব ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিলেও কনস্ট্রাকশন, পামওয়েল ও প্লানটেশন সেক্টরে তারা কাজ করে না বা এত পরিশ্রম করতে পারেন না। এসব সেক্টরে বাংলাদেশিরা কাজ করে। এজন্য নতুন করে আরো ৫ লাখ কর্মী প্রবেশ করলে সাময়িক সংকট সৃষ্টি হলেও তা দীর্ঘস্থায়ী হবে না। কাজের সংকট সৃষ্টি হবে না।

এদিকে বেশিরভাগ কলিং ভিসার কর্মী তাদের নিজ নিজ কোম্পানি সহ বাইরের কোম্পানিতে কাজ করছেন।  কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, কিছু কিছু কোম্পানির নিয়োগ কর্তারা শ্রমিকদের কাজ দিতে পারছেন না, তাদের মাসের পর মাস বসিয়ে রেখেছেন। এজন্য তাদেরকে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। তারা মালয়েশিয়া যাওয়ার পর কোম্পানির কথার সাথে বাস্তবে কাজের মিল পাচ্ছেন না। এসব বিষয় নিয়ে তারা কোথায় বা কিভাবে অভিযোগ করবেন, তাও বুঝতে পারছেন না।

সামগ্রিক ভাবে প্রথম দিকে কাজ না পাওয়ার একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেলেও এখন এই অভিযোগ একটু কমে এসেছে। তাছাড়া পাহাড় জঙ্গলে ভরা মালয়েশিয়ার প্রত্যান্ত অঞ্চলের খবর মিডিয়ায় আসে না।

দূতাবাসের দাবি, এপর্যন্ত কাজ না পাওয়ার যত অভিযোগ কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে এসেছে সবগুলো অভিযোগ খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন তারা।  এমনকি দূতাবাসের হস্তক্ষেপে কলিং ভিসার কর্মীদের তাৎক্ষনিক কাজের ব্যবস্থাও করে দেওয়া হয়েছে।

কলিং ভিসার শর্ত অনুযায়ী কর্মীরা কাজ পেয়েছেন কিনা বিষয়টি জানতে সরেজমিনে পরিদর্শন করেন প্রতিবেদক। এসময় কোতাবারু প্রদেশে অবস্থিত মিজান গ্রান্ড ইন্টারট্রেডাসের মাধ্যমে মালয়েশিয়ার সরকারি প্রজেক্টে গেলে কর্মীরা বলেন, আমরা কলিং ভিসায় মালয়েশিয়ায় আসার সাথে সাথে আমাদের কে দাতু মিজান বস থাকার জায়গা সহ চুক্তি অনুযায়ী কাজ দিয়েছেন। আমাদের বেতন ভাতা সঠিক সময়ে পাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. গোলাম সারোয়ার বলেন, মালয়েশিয়ায় নবাগত বাংলাদেশী প্রবাসী কর্মীরা ভালো আছেন এবং তারা নতুন কাঠামো অনুযায়ী বেতন/মজুরি পাচ্ছেন। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের সামাজিক মর্যাদা, কর্ম পরিবেশ ও বেতন কাঠামো নিয়ে বাংলাদেশী কর্মীরা সন্তুষ্ট। তবে অভিবাসন ব্যয় আরও কমানো সম্ভব হলে শ্রমিক-কর্মীরা বেশী বেশী উপকৃত হতেন। এ বিষয়ে উভয় সরকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, খুবই স্বল্প সংখ্যক প্রবাসী মাঝে মাঝে কর্মসংস্থান সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে হাই কমিশনের সহযোগিতার জন্য যোগাযোগ করেন। এ ক্ষেত্রে হাই কমিশন যথাসম্ভব দ্রুততার সাথে মালয়েশিয়ার যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে এ সমস্ত সমস্যা সমাধান করছে। তবে এখন পর্যন্ত এই ধরনের সমস্যাগ্রস্থ কর্মীর সংখ্যা মোট আগত কর্মীর তুলনায় একেবারেই নগন্য।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com