বিপদে পাই, নিশাত’কে সংসদে দেখতে চাই

শনিবার, ০৫ জানুয়ারি ২০১৯ | ১০:৩৮ অপরাহ্ণ | 445 বার

বিপদে পাই, নিশাত’কে সংসদে দেখতে চাই

মানসিক প্রতিবন্ধী ৮মাসের গর্ভবতী মহিলাটি নাম ঠিকানা বলতে পারেনা। শুধু বলে-‘বাবা বিয়ে দেয় নাই। ঘরে সৎ মা। বন্ধের কাছে বাড়ী। আমার বয়স ১বছর।’ কথাগুলো এলোমেলো ভাবে বলছিল।  ২০ অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার ভাদুঘরের আছিয়া নামে এক মহিলা জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে দিয়ে যায়। হাসপাতালের গাইনী ওয়ার্ডে সামনে একটা চাটাইয়ের মধ্যে চলছিল চিকিৎসা। এ খবর পেয়ে দ্রুত হাসপাতালে যান তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত। খোঁজ খবর নেন ওই প্রতিবন্ধী প্রসূতী মহিলাটির। হাসপাতালে তার খোঁজ সেখান থেকে নিরাপদ প্রতিষ্ঠান সামাজিক প্রতিবন্ধী নিবাসে পৌঁছে দেন নিশাত। এমন অসংখ্য উদাহরণ আছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া নারী নেত্রী তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাতের।
Brahmanbaria Nishat-2
পেশায় আইনজীবি তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাত। নিজেকে সামাজিক ও জনসেবামূলক কাজে সম্পৃক্ত করতে রাজনীতিতে সময় দেন বেশি। আইনজীবির পাশাপাশি নিশাত ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান। বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী নিশাত সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার ৫২২ ভোট পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর ও বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর সহযোগীতায় মডেল উপজেলা পরিষদ গঠন ও নারীদের উন্নয়নে  কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

এছাড়াও তিনি জেলা মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাংবাদিক, সমাজ ও সংস্কৃতি কর্মী। নেত্রী নিশাত ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে তিনি আজ এতদূর পৌছেছেন। দীর্ঘ এ সময়ে দলের আন্দোলন-সংগ্রামের সক্রিয় অংশগ্রহণের জেরে একাধিক রাজনৈতিক মামলার আসামিও হয়েছেন তিনি।

সাংবাদিক নিশাত ২০০৭ সালে তিনি নারী সাংবাদিকতায় ‘সালমা সোবহান ফেলোশীপ’ (ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া) অর্জন করেন। বর্তমানে তিনি স্থানীয় সাপ্তাহিক ‘গতিপথ’ পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক।

যেখানেই প্রতিবন্ধি, অবহেলিত হিজড়া ও অসহায় মানুষের সেখানেই নিশাত। তাঁর প্রচেষ্টায় বদলেছে সদর উপজেলার সীতানগর, কাশিনগর ও ঋষিপাড়ার অবহেলিত নারীদের জীবন। ওই গ্রামের শতশত নারীকে নানা ভাবে সহায়তা করে আত্মনির্ভরশীল করে তুলেছেন। অবহেলিত নারী সমাজের জন্যে সার্বক্ষণিক কাজ করছেন তিনি। পারিবারিক কলহে অসহায় নারীদের আইনী সহায়তা প্রদান, বাল্য বিয়ে রোধ ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে সবসময় সোচ্চার নিশাত।
Brahmanbaria Nishat-3
এছাড়া প্রতিবন্ধীদের সেবায় দীর্ঘ সময় নিয়োজিত এই নারী নেত্রী ১৫ বছর সুইড পরিচালিত আসমাতুন্নেছা বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই হিসেবে প্রতিবন্ধীদের প্রতি রয়েছে তাঁর গভীর ভালোবাসা ও মমত্ববোধ।

নিশাতকে এবার জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য করার দাবি ওঠেছে। দিন যতই যাচ্ছে জোরালো হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের সেই দাবি। সমাজের নানা ক্ষেত্রে কাজের কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নারী রাজনীতিকদের মধ্যে নিশাত এখন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। তাই নিশাতকে এবার জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য করার দাবি ওঠেছে। দলের তৃণমূল নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সেই দাবি সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের। তাদের মতে, নারীদের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কাজ করছেন, নিশাতকে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য করা হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সে কাজ আরও তরান্বিত হবে। ইতোপূর্বে নবম জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনের সদস্য হওয়ার জন্যে দলের মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারা বেগম বলেন, নিশাত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হওয়ার পর থেকেই দেখছি শুধু নারীদের কিভাবে এগিয়ে নেয়া যায় সে চেষ্টা করতে। সবসময় গরীব-দুঃখিদের পাশে থাকে সে। মানুষের উপকারের জন্য হলেও এমন একটা মানুষকে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য করার দাবি জানাই আমরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রতিবন্ধীদের সংগঠন ড্রিম ফর ডিস্অ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের সভাপতি হেদায়তুল আজিজ বলেন, তাসলিমা সুলতানা খান নিশাত একজন যোগ্য ও আদর্শবান মহিলা রাজনীতিক। সমাজের যে কোনো শ্রেণির মানুষ সহজেই তার কাছে সাহায্যের জন্য যেতে পারেন। ১৫-২০ বছর কাজ করছেন তিনি আমাদের প্রতিবন্ধীদের জন্য। সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে প্রতিবন্ধীদের পক্ষ থেকে দাবি জানাই তাকে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য করার।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com