আপডেট

x

জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আখাউড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত সাবেক সেনা সদস্য

বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারি ২০২২ | ৮:২৭ অপরাহ্ণ | 335 বার

জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আখাউড়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় আহত সাবেক সেনা সদস্য
ছবি: সেনাবাহিনীতে চাকরিকালীন আহত আক্তার হোসেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এক সাবেক সেনা সদস্যকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে প্রতিপক্ষ। গত ১২ জানুয়ারি সন্ধ্যায় পৌর এলাকার কলেজপাড়ায় এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় আহত হয় তার প্রবাসী শ্যালক। বর্তমানে তিনি ঢাকায় হাসপাতালে জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। তবে এই ঘটনায় আখাউড়া থানায় মামলা দেওয়া হলেও তা গ্রহণ করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন আহতের পরিবার।


লিখিত এজহার সূত্রে জানা, আখাউড়া উপজেলার মিনারকুট গ্রামের তাজুল ইসলাম ভূইয়ার ছেলে সিঙ্গাপুর প্রবাসী রবিউস সানির সাথে নানান বিষয় নিয়ে পূর্ব বিরোধ চলে আসছিল শরীফ ভূইয়ার। শরীফ ভূইয়া সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের বরিশল গ্রামের মৃত দুবরাজ ভূইয়ার ছেলে। রবিউস সানির ভগ্নিপতি আক্তার হোসেন একজন সাবেক সেনা সদস্য। চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর তিনি আখাউড়ার কলেজপাড়ায় হার্ডওয়্যার ও ইলেকট্রনিকের দোকান খোলে ব্যবসা করে আসছেন। গত ১২জানুয়ারি সন্ধ্যায় রবিউস সানি তার ভগ্নিপতির দোকানে আসেন। এই খবর পেয়ে শরীফ ভূইয়া ও তার আরও তিন ভাই কামাল ভূইয়া, আরিফ ভূইয়া, রুবেল ভূইয়াকে সাথে নিয়ে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্রসহ আক্তার হোসেনের দোকানে ডুকে রবিউস সানির উপর হামলা করেন। এসময় শ্যালককে বাঁচাতে গেলে আক্তার হোসেনের উপর হামলা করে শরীফ ভূইয়া ও তার থাকা অন্যান্য ভাইয়েরা। হামলাকারীরা কুপিয়ে রক্তাক্ত করেন সাবেক সেনা সদস্য আক্তার হোসেনকে। পরে তারা আক্তার ও তার শ্যালক রবিউস সানিকে দোকানে বাইরের ফেলে বেদম প্রহার করে। এরপর হামলাকারীরা রবিউস সানির পাসপোর্ট ও আক্তারের দোকানের মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

webnewsdesign.com

স্থানীয়রা আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। সেখান থেকে জেলা সদর হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসপাতালে আক্তার হোসেনের শারীরিক অবস্থা অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বর্তমানে আক্তার হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন।

আহত প্রবাসী রবিউস সানি অভিযোগ করে বলেন, আমার বোন সাবেক সেনা সদস্য আক্তার হোসেনের স্ত্রী সুমি আক্তার বাদি হয়ে হামলাকারী শরীফ ভূইয়া, আরিফ ভূইয়া, কামাল ভূইয়া ও রুবেল ভূইয়াসহ অজ্ঞাত আরও ৩/৪জনকে আসামী করে আখাউড়া থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে পুলিশ তা গ্রহণ করেননি।

এই বিষয়ে জানতে আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মুঠোফোনে কল দেওয়া হলে রিসিভ করেন পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় সরকার। তিনি বলেন, আমি ১২ তারিখের পর আখাউড়া থানায় যোগদান করেছি। এই বিষয়ে আমি অবগত নয়।

বুধবার রাতে কসবা-আখাউড়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নাহিদ হোসেন জানান, আমি এই ঘটনা অবগত নই। খোঁজ নিয়ে জানতে পারবো।


 

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com