নাসিরনগরে

কোয়ারেন্টাইনে যেতে এসি গাড়ি দাবী প্রবাসীর, চাইলেন চাইনিজ খাবার

শুক্রবার, ১৫ মে ২০২০ | ১:১০ পূর্বাহ্ণ | 124 বার

কোয়ারেন্টাইনে যেতে এসি গাড়ি দাবী প্রবাসীর, চাইলেন চাইনিজ খাবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর উপজেলায় এক লন্ডন প্রবাসী (৩৫) দেশে ফিরে বাড়িতে ছিলেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই প্রবাসীকে জেলার বিজয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

কিন্তু সেখানে যেতে চেয়েছিলেন এসি গাড়িতে, আর গিয়ে চাইলেন চাইনিজ খাবার। এছাড়াও ওই প্রবাসীর বাড়িটি লকডাউন করে লাল পতাকা টানিয়ে দিয়েছেন। প্রবাসীর বাড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা আশরাফী।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ মে ওই লন্ডন প্রবাসী বাংলাদেশে আসেন। তা জেনে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রবাসীর বাড়ি গিয়ে তাকে হোমকোয়ারেন্টাইনে থাকতে অনুরোধ করেন। তখন প্রবাসী ওই কর্মকর্তার সাথে দূর্ব্যবহার করেন। পরে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করলে তিনি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে তার বাড়িতে পাঠান। ইউপি চেয়ারম্যান প্রবাসীর বাড়ি গিয়ে কোয়ারেন্টাইন মানতে অনুরোধ করলে তাঁর সাথেও খারাপ ব্যবহার করেন। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রবাসীকে ফোন করেন কিন্তু সে ফোন রিসিভ করেননি। ১৪ মে সেনাবাহিনীর একটি টহল টিম ও পুলিশের সহযোগিতায় প্রবাসীর বাড়ি গিয়ে তাকে হোমকোয়ারেন্টাইন মানতে বলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তখন ওই প্রবাসী তাদেরকেও অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে ওই প্রবাসী বলেন, ‘লন্ডনে আমার করোনা টেষ্ট হয়েছে। বাংলাদশে কেন আবার টেষ্ট করতে হবে। আমি বাসা থেকে বের হবো। হোমকোয়ারেন্টাইন মানবনা। প্রয়োজনে আমি বৃটিশ হাইকমিশনে আপনাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করবো।’

এই ভাবে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চলে তর্কবিতর্ক। পরে দুপুর দুইটার দিকে হোমকোয়ারেন্টাইনে যেতে রাজি হয় ওই প্রবাসী। তবে তাকে এসির ব্যবস্থা করে দিতে হবে বলে জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা আশরাফী জানান, এর আগেও ওই পরিবারের দুইজন আমরিকান প্রবাসী তথ্য গোপন করে এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করে। পরে তাদের হোমকোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়। আজকে ওই প্রবাসী ও তার পরিবার যে আচরণ করেছে তা দুঃখজনক।

এদিকে, বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেহের নিগার বলেন, নাসিরনগরের ওই প্রবাসীকে বিজয়নগরে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে আনার পর আমি তার সাথে কথা বলেছি। তাকে সকল সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছি। আমি তাকে বলেছি আমাদের সীমিত সামর্থ্যের মধ্যে যতটুকু সম্ভব আমরা চেষ্টা করব। তবে আমার স্টাফ জানিয়েছে, উনি চাইনিজ খাবার চাচ্ছেন।

রাফি/–

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com