কসবায় ৭ ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা

রবিবার, ২২ মার্চ ২০২০ | ৯:৪৯ অপরাহ্ণ | 61 বার

কসবায় ৭ ব্যবসায়ীকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা

করোনাভাইরাস আতঙ্কে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় বিভিন্ন বাজারে চাল-ডাল-তেল ও পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্য কেনার হিড়িক পড়েছে। নিত্যপণ্য কিনতে বাজারগুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভীড়। এ সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়ে বেশি দামে বিক্রি শুরু করেছে।

এ খবর পেয়ে রোববার (২২ মার্চ) দুপুরে ন্যায্য মূল্যের চেয়ে বেশী দামে পেঁয়াজসহ বিভিন্ন পন্য বিক্রি করায় এবং দোকানে ন্যায্য মূল্যের তালিকা না টানানোর দায়ে কসবা বাজারের ২ ব্যবসায়ী ও উপজেলার নয়নপুর বাজারের ৫ ব্যবসায়ীসহ ৭ ব্যবসায়ীকে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাসুদ উল আলম।

ভ্রাম্যমান আদালত জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারনে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেলে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাবে এমন গুজবে নিত্যপন্য ক্রয় করার জন্য গত কয়েকদিন ধরে কসবা পৌর শহরসহ বিভিন্ন বাজারে স্থানীয় ক্রেতাগন ভীড় করছেন। এই সুযোগে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ীরা ফায়দা লুটতে নিত্যপন্যের দাম বাড়িয়ে দিয়ে বিক্রি শুরু করছেন।

রোববার দুপুরে কসবা শহরে এবং নয়নপুর বাজারে অতিরিক্ত দাম রাখা সহ ন্যায্যমুল্য তালিকা না থাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মাসুদ উল আলম।

এ সময় বাজারের দোকানগুলোতে অভিযান চালায় আদালত। আদালত পরিচালনাকালে সাথে ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট রাশেদুল কাওসার ভূঁইয়া জীবন ও কসবা থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ লোকমান হোসেন।

ভোক্তা অধিকার আইনে ৭ ব্যবসায়ীকে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন আদালত। কসবা বাজারের ব্যবসায়ী প্রদীপ সাহাকে ৫ হাজার টাকা, শ্রী গুরু ষ্টোরকে ৫ হাজার এবং নয়নপুর বাজারে পাঁচ ব্যবসায়ীকে ৫ হাজার টাকা করে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ উল আলম বলেন, করোনাভাইরাসের প্রভাবকে পুঁজি করে পিয়াজসহ বিভিন্ন নিত্যপন্যের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছিলেন কিছু অসাধু ব্যবসায়ী। পাশাপাশি দোকানে দব্যমুল্যের তালিকা না থাকায় ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে সাত ব্যবসায়ীকে ভোক্তা অধিকার আইনে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রন রাখতে এবং দ্রব্যমূল্যের তালিকা যেন প্রতি দোকানে থাকে এ জন্য নিয়মিত বাজার মনিটরিং করা হবে।

রুবেল//-

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com