আপডেট

x

কসবায় চাঁদাবাজি ও শ্লীলতাহানীর মামলায় তিনজন গ্রেপ্তার

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১ | ১০:৫৪ অপরাহ্ণ | 364 বার

কসবায় চাঁদাবাজি ও শ্লীলতাহানীর মামলায় তিনজন গ্রেপ্তার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মনকাশাইর গ্রামে আবু কাওসার ভূইয়া নামক এক ব্যক্তি বাড়ির গেইট সংলগ্ন কাচা রাস্তা পাকা করতে চাঁদা না দেয়ায় সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়। এসময় স্বামীকে বাঁচাতে এসে কাওসারের স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিনকেও টানা হেঁচরা ও শরীরের কাপড় ছিড়ে শ্লীলতাহানী করে। নিলুফা ইয়াসমিন ৯ জনকে আসামী করে কসবা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।


পুলিশ ঘটনায় জড়িত মো.ইসমাইল (৩২), শওকত হোসেন সবুজ (৩৪) ও শাকির মিয়া (৩০) কে মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করে দুপুরে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

webnewsdesign.com

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ জুলাই উপজেলার মনকাশাইর গ্রামের মৃত আবদুর রাজ্জাকের ছেলে মোহাম্মদ আবু কাওসার ভূইয়া বাড়ির গেইট সংলগ্ন কাচা রাস্তায় পাকা করার জন্য ইট বালি সিমেন্ট নিয়ে এলে পার্শ্ববর্তী বাড়ির বিল্লাল হোসেন নুরু মিয়ার নেতৃত্বে অপকর্মকারী ইসমাইল, সবুজ, সাকির, আরাফাত, তারিকুল, মামুনসহ ৯ জন ৫ লাখ চাঁদা দাবী করে। আবু কাওসার চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে নুরু মিয়া তার সন্ত্রাসী দলবল নিয়ে তার উপর হামলা চালায়। এসময় আবু কাওসারকে লাঠিসোটা দিয়ে আঘাত করতে থাকলে তাঁর স্ত্রী নিলুফা ইয়াসমিন স্বামীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও সন্ত্রাসীরা কাপড়-চোপড় ছিঁড়ে তাকে মারধোরসহ শ্লীলতাহানী করে। স্থানীয় লোকজন এসে তাদের কবল থেকে স্বামী-স্ত্রীকে উদ্ধার করে কসবা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়।

এব্যাপারে কসবা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে অফিসার ইনচার্জ তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং সাড়াঁশি অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেন।

ভুক্তভোগী আবু কাওসার সাংবাদিকদের জানান, আসামীরা খুব খারাপ প্রকৃতির মানুষ। এদের ভয়ে গ্রামের মানুষ সবসময় ভীত সন্ত্রস্ত্র থাকেন। তিনি কসবা থেকে নির্বাচিত মাননীয় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এমপি’র সহযোগিতা কামনা করেন।

কসবা থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলমগীর ভূইয়া বলেন, চাঁদাবাজি ও নারী নির্যাতন মামলায় সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ভুক্তভোগীরা মামলা রুজু করা করেছেন। এদের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসা, সেবন ও চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com