আপডেট

x

ঈদের দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাংস বিক্রির অস্থায়ী বাজার

বুধবার, ২১ জুলাই ২০২১ | ১১:০৯ অপরাহ্ণ | 71 বার

ঈদের দিনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাংস বিক্রির অস্থায়ী বাজার

দেশব্যাপী পালিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আযহা। ধর্মপ্রাণ সামর্থ্যবান মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় পশু কোরবানি দিয়েছেন। কোরবানির পর মাংস ইতিমধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে হতদরিদ্রদে মাঝে। এই মাংস পেয়ে অনেক হতদরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষ কিছু আয়ের আশায় বিক্রয় করে দিচ্ছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে টিএ রোডের তোফায়েল আযম মনুমেন্ট এলাকায় জমে উঠেছে মাংসের অস্থায়ী বাজার।


বিকেল ৩টায় গিয়ে দেখা যায়, মাংসের বাজারটি জমজমাট বিক্রেতা-বিক্রেতায়। ব্যাগে করে মাংস এনেছেন বিক্রয় করতে। এখানে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও মাংস এনেছেন বিক্রয় করতে। ক্রেতারাও ক্রয় করতে দরদাম করছেন। বাজারে মাংস বিক্রেতার সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা মানুষের বাড়িতে কোরবানির পশুর মাংস বানাতে সহায়তা করে ও মানুষের বাড়ি বাড়ি ঘুরে সংগ্রহ করে এসব মাংস পেয়েছেন। এরমধ্যে গরু ও মহিষের মাংস এনেছেন তারা বিক্রয় করতে। আর যারা ক্রয় করছেন তাদের মধ্যে অধিকাংশই অন্য জেলার। চাকরির সুবাদে এখানে রয়েছেন। তারা কোরবানি না দেওয়ায় মাংস কিনে রান্না করবেন।

webnewsdesign.com

বিকাশ নামের এক বিক্রেতার সাথে হলে তিনি জানান, আমি পেশায় মুচি। আজ সকাল থেকে পরিচিত এক ভাইয়ের বাসায় কোরবানির মাংস কাটতে সহায়তা করেছি। সেখান থেকে আমাকে পারিশ্রমিকের পাশাপাশি কিছু মাংস দিয়েছেন। সেই মাংস গুলো থেকে কিছু রেখে বাকি গুলো বিক্রয় করতে নিয়ে এসেছি।

ফারুক মিয়া নামের এক বিক্রেতা জানান, কোরবানি দেওয়ার সামর্থ্য আমার নাই। এক ব্যবসায়ীর বাড়িত কোরবানির মহিষ জবাই করে মাংস কাইট্রা দিছি। কাম শেষ হইবার পরে কিছু টেহা আর মাংস দিছে। প্রতিবেশী ও আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি থেইক্কাও মাংস দিছে। হুদা মাংসে কি পেট ভরবো? সংসার চালাইত টেহার দরকার আছে ঘরে। ইল্লিগা কুছু মাংস বেইচ্চা লাইতে আইছি।

আলাল উদ্দিন নামের এক ক্রেতা জানান, আমার বাড়ি রাজশাহীতে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় থেকে একটি ঔষধ কোম্পানিতে চাকরি করি। একদিন পর লকডাউন দিবে জানতে পেরে ঈদে আর বাড়িতে যায়নি। এই জেলায় আত্মীয়-স্বজন কেউ নেই। এখানে অনেকটা কমদামে মাংস বিক্রয় করছে জেনে এসেছি কিনতে।


মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com