আখাউড়ায় স্থানীয়দের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় মাদক ব্যবসায়ী নিহত

শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩ | ৮:৫৬ অপরাহ্ণ |

আখাউড়ায় স্থানীয়দের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় মাদক ব্যবসায়ী নিহত
নিহত মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল হেকিম ওরফে টাক্কা।-ফাইল ছবি
Spread the love

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলায় স্থানীয়দের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় আব্দুল হেকিম ওরফে টাক্কা (৩২) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। শুক্রবার (১৭ মার্চ) রাতে ঢাকায় নেওয়ার পথে সে মারা যায়। নিহত আব্দুল হেকিম ওরফে টাকা উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের কল্যাণপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে।

এর আগে, শুক্রবার বিকেলে স্থানীয়দের সংঘর্ষ হয় মাদক ব্যবসায়ীদের। এই ঘটনায় উভয় পক্ষের নারী-পুরুষ সহ ৮ জন আহত হয়েছেন।

webnewsdesign.com

আহতরা হলেন, বাবুল মিয়ার ছেলে , আব্দুর রহমানের ছেলে চুন্নু মিয়া(৩০), বাবুল মিয়ার স্ত্রী রুপসা বেগম (৪৫), মৃত কাজী সোনা মিয়ার ছেলে কাজী সিরাজ(৬২) ও তার ছেলে কাজী সালেক মিয়া (৩৭), ফয়জুল হক মিয়ার ছেলে মো. রনি মিয়া (৩২) ও সালেক মিয়া( ৩৪), হান্নান মিয়ার ছেলে ফয়সাল মিয়া, আলিম মিয়ার পুত্র মো. সোহেল মিয়া। আহরা সবাই একই গ্রামের বাসিন্দা। এর মধ্যে মাদক ব্যবসায়ী আব্দুল হেকিম ওরফে টাক্কা কে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করা হলে পথিমধ্যে মারা যায়।

মাদক ব্যবসায়ী টাক্কা নিহতের সত্যতা নিশ্চিত করে আখাউড়া উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান জানান, আব্দুল হেকিম টাক্কা একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তার স্থানীয় শিক্ষনবিশ আইনজীবী রনি’র তার মাদক ব্যবসায় বিরোধিতা করায় টাক্কা ক্ষুব্ধ ছিলেন। বিষয়টি কয়েকবার আমাকে রনি জানিয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে শিক্ষানবিশ আইনজীবী হওয়ায় রনি শহরে বাসা নিয়ে বসবাস করছে।
তিনি আরও জানান, সম্প্রতি মাদক ব্যবসায়ী আব্দুর হেকিম টাক্কা হুমকি দিয়েছে, রনিকে শহরের লোকজন দিয়ে মারধর করবে। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার বিকেলে রনি তার নিজ বাড়িতে আসলে টাক্কা তার ওপর চড়াও হয়। এনিয়ে মাদক ব্যবসায়ীর সাথে স্থানীয় বাসিন্দাদের সংঘর্ষ হয়েছে। এই সংঘর্ষে টাক্কার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যায়।

তবে আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুল ইসলাম জানান, টাক্কা একজন মাদক ব্যবসায়ী। সম্প্রতি এক নারী সহ টাক্কাকে একটি ঘর থেকে আটক করা হয়েছিল। ছাড়া পাওয়ার পর স্থানীয়রা তাকে নিয়ে মস্কারা করতো। বৃহস্পতিবার সে মোটরসাইকেল নিয়ে এলাকায় ঘুরাঘুরির সময় কাজী সালেক মস্কারা করেন। এনিয়ে দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়৷ শুক্রবার এই ঘটনার জেরে সালেক ও তার চাচাতো ভাই রনির সাথে টেক্কার বাকবিতণ্ডা হলে স্থানীয়রা তাকে মারধোর করে। এই নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। টাক্কাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পথে সে মারা যায়।

তিনি আরও জানান, আব্দুল হেকিম ওরফে টাক্কার বিরুদ্ধে থানায় ৫টি মামলা রয়েছে। এরমধ্যে ৩টি মাদকের মামলা চলমান রয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com