ভারতে চামড়া পাচার রোধে সীমান্তে সতর্ক বিজিবি

মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮ | ৭:৫৩ অপরাহ্ণ | 79 বার

ভারতে চামড়া পাচার রোধে সীমান্তে সতর্ক বিজিবি

রাত পোহালেই ঈদুল আযহা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় প্রতিবছরই দালাল-ফরিয়াদের অপতৎপরতায় কোরবানির পশুর চামড়া ভারতে পাচারে সক্রিয় হয়ে ওঠে একাধিক চক্র। এবারও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া, কসবা ও বিজয়নগর উপজেলা সীমান্ত দিয়ে চামড়া পাচারের আশঙ্কা রয়েছে সে আশংকায় চামড়া পাচার রোধ করতে সীমান্তে বাড়তি সতর্কতা জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ২৫ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মুহাম্মদ গোলাম কবির।
তিনি জানান, সীমান্তে সবসময়ই সতর্ক অবস্থানে থাকে বিজিবি। চামড়া যেন ভারতে পাচার না হয় সেজন্য ঈদের আগে থেকেই সীমান্তে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহ এ সতর্কতা অবলম্বন করবে বিজিবি।
জেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, প্রতি বছর ঈদুল আজহায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় দুই লাখেরও বেশি পশু জবাই করা হয়ে থাকে। চলতি বছর জেলাজুড়ে ১০২টি পশুর হাট বসেছে।
জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা:গণেশ চন্দ্র মন্ডল জানান এবারের ঈদুল আযহায় ১৪ হাজার ৩শ ৭৫টি খামারে ১ লাখ ৪হাজার ৭শ ৩৫টি গরু মোটাতাজাকরণ করা হয়েছে।বাকী গরু দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে চাহিদা পুরণ করা হয়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মো:আনোয়ার হোসেন খান জানান অবৈধভাবে এবং গণঅধিকার লঙ্গিত হয় এমন স্থানে চামরা বাজার যেন না বসতে পারে সে ব্যাপারে পুলিশকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।তিনি আরো বলেন চামড়া যাবে ঢাকার দিকে।কুমিল্লার দিকে চামড়া গেলে সে ব্যাপরে চামড়া ব্যবসায়ীদের বৈধ কাগজ-পত্র দেখারও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
এদিকে, এ বছর যত্রযত্র চামড়ার হাট না বসানোর ব্যাপারেও কঠোর অবস্থানে রয়েছে জেলা প্রশাসন। ইতোমধ্যে চমড়া ব্যবসায়ীদের নিয়ে বৈঠকও করেছেন জেলা প্রশাসক।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান বলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে বড় কোনো চামড়া ব্যবসায়ী নেই। ছোট-খাটো যারা রয়েছেন তাদের সাথে বৈঠক করা হয়েছে। বেশিরভাগ চামড়া ভৈরবের ব্যবসায়ীরা এসে নিয়ে যান। এবার শহরের মধ্যে বোর্ডি মাঠ ও নিয়াজ মুহম্মদ স্টেডিয়ামের বাইরে চামড়া ব্যবসায়ীরা বসার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com