পুলিশ দেখেই অজ্ঞান আসামি, অতঃপর…

মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ | ৮:৪৪ অপরাহ্ণ | 78 বার

পুলিশ দেখেই অজ্ঞান আসামি, অতঃপর…

ফেনীর ছাগলনাইয়ায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি জাফর আহমেদ মজুমদার (৫২) পুলিশ দেখে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুবরণ করেছেন। সোমবার গভীর রাতে উপজেলার পাঠাননগর ইউনিয়নের পাঠাননগর গ্রামের ফয়েজ আহাম্মদ মজুমদারের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, একই বাড়ির ঝর্না আক্তারের সঙ্গে মোজাম্মেল হক রাকিব ও জাফর আহমেদ মজুমদারের পরিবারের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে গ্রাম্য সালিশ ও গ্রাম আদালতে ওই নারী অভিযোগ দিলে স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হয়। ঝর্না আক্তার রায় প্রত্যাখ্যান করে ২০১৬ সালে ৫ জনকে আসামি করে ফেনীর আদালতে জিআর ২০৬/১৬ মামলা দায়ের করেন। দীর্ঘদিন যাবত মামলা চলে আসছিল। সম্প্রতি নির্ধারিত তারিখে হাজিরা না দেয়ায় আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়।
ঘটনার রাতে ছাগলনাইয়া থানার এসআই কামালের নেতৃত্বে এএসআই মকবুল, দিমান ও জাহাঙ্গীর আলম ও কয়েকজন কনস্টেবল আসামিদের ধরতে ওই বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি মনির আহামদের ছেলে মোজাম্মেল হক রাকিব (২৪), আবু রাসেল খোকনের স্ত্রী পলি বেগমকে (২৭) গ্রেফতার করা হয়। অপর আসামি জাফর আহমেদ মজুমদারকে ধরতে পুলিশ তার ঘরে প্রবেশ করলে তিনি চৌকির নিচে লুকিয়ে পড়েন। পুলিশ তাকে বের করে আনলে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন। বাড়ির লোকজন তাকে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

জাফর আহমেদ মজুমদারের ভাই ছালে আহাম্মদ মজুমদার জানান, তার বড় ভাই জাফর আহমেদ মজুমদারের এর আগেও দুই বার হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল।

ফেনী সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার অসীম কুমার সাহা হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে জাফর আহমেদ মজুমদারের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ছাগলনাইয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এম মোর্শেদ বলেন, আসামি জাফর আহমেদ মজুমদারের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। গ্রেফতার অপর দুই আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Development by: webnewsdesign.com